শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রাহ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ. স্মরণে বিশিষ্টজন ও সাংবাদিকদের সম্মানে দু’আ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার ( ১৮ এপ্রিল) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব এস রহমান হল মিলনায়তনে মুফতি ওসমান গণি চৌধুরীর সঞ্চালনায় আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহের আমীর, শাইখুল ইসলাম ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান শাইখুল হাদীস আল্লামা আনাস মাদানীর সভাপতিত্ব দু’আ ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধান অতিথি ইসলামী ঐক্যজোটের সংগ্রামী মহাসচিব আল্লামা মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, আল্লামা শাহ আহমদ শফী রাহ. তাঁর বর্ণাঢ্য জীবনে উম্মাহ’র বহুমুখী খেদমত আঞ্জাম দিয়েছেন। তিনি বাতিলের রক্ত চক্ষু উপেক্ষা করে বিপদ সংকুল পিচ্ছিল রাজপথে তাগুতের মোকাবিলা করে গেছেন।

বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইজ্জত রক্ষায় ঐতিহাসিক হেফাজত আন্দোলনে তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও ভূমিকা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকবে। শায়খুল ইসলামের চলে যাওয়ার মধ্য দিয়ে উম্মাহ এক অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে।

যেখান থেকে উঠে আসতে হলে শাইখূল ইসলামের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে কাজ করা ছাড়া বিকল্প নেই। ইসলামী শিক্ষাঙ্গণে তিনি ছিলেন আলোকবর্তিকা, ইসলামী আন্দোলনে ছিলেন অকুতোভয় আপোষহীন নেতা।

শাইখুল হাদীস আল্লামা আনাস মাদানী বলেন, শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহমতুল্লাহি আলাইহি দীর্ঘকাল ধরে রমজানের শেষ দশদিন এতেকাফ করতেন। বিগত কয়েক বছর রমজানের শেষ দশদিন দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার মসজিদে হযরতের খোলাফাদের বড় একটি অংশ নিয়ে এতেকাফে খুবই একাগ্রতা ও এহতেমামের সঙ্গে কাটাতেন এবং দ্বীনের বহুমুখী খেদমত আঞ্জাম দিতেন। এককথায় বিশেষ রহমতের মাস রমজানকে হযরত রাহমাতুল্লাহি আলাইহি গভীর মুজাহাদা ও মুশাহাদার মাধ্যমে কাটাতেন।
আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ বাংলাদেশ এর সাথে সংশ্লিষ্ট সকল খোলাফায়ে কিরাম এবং উলামাদের কাছে আমাদের বিশেষ আবেদন, আসন্ন মাহে রমজান যেন বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে আদায় করেন। আল্লাহপাকের বান্দাদেরকে আল্লাহর সাথে দাওয়াত ও ফিকিরের সাথে বিযুক্ত করার সুবর্ণ সুযোগ এই মাহে রমজান। বিশেষ করে মাহে রমজানের শেষ দশদিন যেমন শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এতেকাফে কাটাতেন, তেমনি হজরতের সকল খলিফা শাইখের পদাঙ্ক অনুসরণে রমজানের শেষ দশদিন নিজ নিজ এলাকায় মুসলিম ভাইদের নিয়ে নিকটস্থ মসজিদে এতেকাফ করেন এবং দাওয়াত ও ইসলাহের মাধুরী ও পরশে নিজ নিজ এলাকাকে নূরান্নিত করার জন্য ঐকান্তিক চেষ্টার আহ্বান জানান।

বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম নাসিরাবাদ জামিয়া মিসবাহুল উলূম মাদরাসার শাইখুল হাদীস আল্লামা নুরুল ইসলাম সাদেক। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ড. বেলাল নুর আজিজী, বিশিষ্টজনদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রফেসর রেজাউল করিম সিদ্দিকী, প্রফেসর নুরুল আনোয়ার, মুহাম্মদ মুঈন উদ্দীন, শওকত ওসমান মিরন, রইসুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম তালুকদার, প্রফেসর কামাল উদ্দীন, জাফর উল্লাহ তালুকদার, শফিক আহমদ তালুকদার, মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহী, মাওলানা শামসুদ্দিন আফতাব, মাওলানা সোহাইল সালেহ, আ ন ম আহমাদ উল্লাহ, মাওলানা সারওয়ার, মাওলানা মোজ্জাম্মেল ইউনুস, মাওলানা ফয়সাল প্রমুখ। সভা শেষে ইসলাম ও দেশ জাতি মানবতার কল্যাণে নিবেদিত সাংবাদিকদের সুস্থতা কামনায় বিশেষ মুনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা আব্দুল জাব্বার।