নিউজ ডেস্কঃ চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় স্ত্রীর সাথে অভিমান করে নিজ বসতঘরে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে জানে আলম নামে এক ব্যক্তি। এতে পার্শ্ববর্তী ঘরেও আগুন লেগে যায়। ফলে দুই বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এ ঘটনায় দুই বছরের একটি শিশু আগুনে দগ্ধ হয়। 

রবিবার (৪ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত আনুমানিক ২টার সময় উপজেলার দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়ার পদুয়া ইউনিয়নের পূর্ব খুরুশিয়া ৭ নম্বর ওয়ার্ড ফকিরটিলা উত্তরপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম।

পার্শ্ববর্তী ঘরের মালিক মোহাম্মদ হারুনের বরাত দিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটানো অভিযুক্ত জানে আলমের বাড়ি বোয়ালখালী উপজেলায়। তবে সে দীর্ঘদিন ধরে পদুয়া খুরুশিয়া উত্তরপাড়া এলাকায় বসবাস করায় এখানকার ভোটার হয়ে যায়। তার স্ত্রীর সাথে অন্য লোকের পরকিয়ার সম্পর্ক আছে এমন সন্দেহে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মনোমালিন্য ও ঝগড়াবিবাদ লেগে থাকে। এরপর থেকে সে বিভিন্ন সময় হুমকি দিতো আমি ঘর পুড়িয়ে দিয়ে চলে যাবো।

নজরুল ইসলাম আরও বলেন, অগ্নিকাণ্ড ঘটানোর আগে জানে আলমের বসতঘরে থাকা জায়নামাজ, পবিত্র কোরআন শরীফ এবং গবাদিপশু ছাগল আগে থেকে বের করে রেখেছিল। এতে পার্শ্ববর্তী মোহাম্মদ হারুনের ঘরে আগুন লাগলে হঠাৎ আগুনের ধোঁয়ায় পরিবারের লোকজন এলোমেলো হয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় থাকা মোহাম্মদ হারুনের দুই বছরের শিশু অগ্নিদগ্ধ হয়ে চিৎকার করলে এলাকাবাসী শিশুটিকে উদ্ধারে এগিয়ে আসে। শিশুটিকে প্রথমে ইছাখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (চমেকে) প্রেরণ করে।

 ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন দূরে থাকায় এলাকাবাসীর সহায়তায় আগুন নেভানো হয় বলে জানান এই ইউপি সদস্য। 
দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবায়দুল ইসলাম বলেন, অগ্নিকাণ্ডে বিষয়ে মোহাম্মদ হারুন ও অভিযুক্তের স্ত্রী তার স্বামী জানে আলমের বিরুদ্ধে অগ্নিকাণ্ড ঘটিয়েছে এমন একটি লিখিত অভিযোগ করেছে থানায়। ওই ঘটনায় হারুনের দুই বছরের শিশু সন্তান অগ্নিদগ্ধ হয়। খবর নিয়ে জেনেছি শিশুটি বর্তমানে সুস্থ আছে। ভুক্তভোগীরা মামলা করতে চাইলে আমরা মামলা নিয়ে অভিযুক্ত জানে আলমের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। বর্তমানে জানে আলম পলাতক রয়েছেন।