নিউজ ডেস্ক:- চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় পক্ষকালব্যাপী বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবার আয়োজন করেছে পদুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়া পদুয়া ইউনিয়নের রাজারহাট কমিউনিটি ক্লিনিক হাসপাতালে সকাল থেকে এ চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়।

এ চিকিৎসাসেবা কর্মসূচিতে প্রায় চার শতাধিক শিশু, নারী ও পুরুষকে মেডিসিন, গাইনি, শিশু, চর্ম ও যৌন, বাত-ব্যাথা ও প্যারালাইসিস রোগের ফিজিওথেরাপিসহ বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়।

এতে চারজন অভিজ্ঞ ডাক্তার সকাল হতে বিকেল পর্যন্ত চিকিৎসাসেবা দিয়েছেন। চারজন চিকিৎসক হচ্ছেন— চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-কলেজ পরিদর্শক ডা. আইরিন সুলতানা, ডা. মোসলেহ উদ্দীন মুসলিম, ডা. এস এম রুকন উদ্দীন ও ডা. মহিন উদ্দীন আজাদ।

পদুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মো. তারেক সোহেলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদ উদ্দীন শওকতের সার্বিক তত্ত্বাবধানে এবং পদুয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. তারেক উদ্দিন রানার সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিবর্তনের নায়ক, স্বর্ণ পদকপ্রাপ্ত সফল মৎস্য খামারী ও সুখবিলাস ফিশারীজ এন্ড প্ল্যান্টেশনের চেয়ারম্যান এরশাদ মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘আমরা যারা আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছি তারা চাইলেই এ ধরনের মানবসেবা ও সমাজসেবামূলক ব্যাতিক্রমি উদ্যোগ নিতে পারি। এ ধরনের উদ্যোগে সমাজ এগিয়ে যাবে। আজকের পদুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের এ ব্যতিক্রমি আয়োজন সত্যিই প্রশংসনীয়। আশা করছি, শুধু পদুয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নয়, অন্যান্য ইউনিয়নেও এ সংগঠন সেবামূলক ও উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন। যে-কোনো সেবা ও উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে আপনারা আমাকে পাশে পাবেন।’

এরশাদ মাহমুদ আরও বলেন, ‘পদুয়া বিশাল একটা ইউনিয়ন। আর এ বিশাল ইউনিয়নের জনগণের চিকিৎসা সেবার বিষয়টি মাথায় রেখে বিশেষ করে প্রসূতি মহিলাদের বিষয়টি নিয়ে আমার বড় ভাই তথ্যমন্ত্রী মহোদয়কে একটি হাসপাতাল নির্মাণের জন্য অনুরোধ জানিয়েছি। তিনি বিষয়টি মাথায় নিয়েছেন। আশা করছি, অতি সম্প্রতি বেশি বড় না হলেও দশ বেডের একটি হাসপাতাল পদুয়াবাসী উপহার পাবেন।’

উদ্বোধকের বক্তব্যে উক্ত কর্মসূচির প্রধান চিকিৎসক ও চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-কলেজ পরিদর্শক এবং জেমিসন রেড ক্রিসেন্ট মেটারনিটি হাসপাতালের প্রাক্তন সিনিয়র মেডিকেল অফিসার ডা. আইরিন সুলতানা বলেন, ‘নিজ গ্রামের মানুষের সেবা করার এটা একটা সুযোগ, তাই হেলায় হারাইনি।’ তিনি বলেন, ‘এটা আমার দাদার বাড়ি, আব্বা এখান থেকে বড় হয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য শহরমুখী হয়েছিলেন। আমরাও এখানে বড় হয়েছি, কিন্তু পেছনে পড়ে আছে গ্রাম। আসলে আমাদের গ্রাম, সুখবিলাস বা রাঙ্গুনিয়া বললেই কেমন জানি একটা অন্যরকম অনুভূতি হয়। তাই আমি সবসময় চাই গ্রামে এসে গ্রামের মানুষকে একটু সেবা দেয়ার জন্য। আজকের এমন আয়োজনকে আমি সাধুবাদ জানাই এবং আশা করবো এ ধরনের কর্মসূচি যেন তারা অব্যাহত রাখেন।’

এদিকে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নাসিরউদ্দিন রিয়াজ বলেন, ‘করোনাকালে মানুষ যখন অসহায় তখন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী জননেতা ড. হাছান মাহমুদ এমপি মহোদয় এনএনকে ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে গরিব-মেহনতি মানুষের মাঝে খাদ্য বিতরণ করেছেন। আর আমরাও আওয়ামী লীগ ও তার অন্যান্য অঙ্গসংগঠনের ন্যায় সে সহায়তা মানুষের বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছি এবং মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। আর এটাই হচ্ছে রাজনীতির ব্রত।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ যেভাবে একটি সেবামূলক কার্যক্রমের আয়োজন করেছে অন্যান্য সংগঠনও যাতে এভাবে দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করেন সেটাই প্রত্যাশা। বাংলাদেশের বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ মুহূর্তে ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দের নির্দেশে আমরা বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কাজ করেছি, মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। স্বেচ্ছাসেবক লীগ একটি মানবিক সংগঠন, আমরা সামনেও এই ধারা অব্যাহত রাখবো ইনশাআল্লাহ।’

অন্যদিকে আজকের এ আয়োজনের প্রশংসা করে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বিশেষ অতিথি দক্ষিণ রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবায়দুল ইসলাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. বদিউজ্জামান বদি, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডা. অঞ্জন দাশ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য মো. সেলিম উদ্দিন, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি প্রণব দাশ, সহ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. ইয়াসির আরাফাত, মো. সালাউদ্দিন, নিরুপম বড়ুয়া, মো. মোরশেদ, যুগ্ম-সম্পাদক রনি আচর্য্য, মো. নাসিম উদ্দিন, মো. ইসমাইল হোসেন, মো. সোহেল ভান্ডারী।

আরও উপস্থিত ছিলেন- ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. আবছার হোসেন, সদস্য মো. মানিক মিয়া, আবু ছৈয়দ, রফিক মিয়া, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নুর জাহান বেগম ও জাহান আরা বেগম প্রমুখ।

পদুয়া রাজারহাট কমিউনিটি ক্লিনিক হাসপাতালের সংলিষ্ট ডাক্তার ও কর্মকর্তাগণ ফ্রি চিকিৎসা সেবায় সার্বিক সহযোগিতা করেন।