সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়া ‘তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের অপকর্ম নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন’ শিরোনামের ১৩ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সরাতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২০ জুন) চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জহিরুল কবির একটি পিটিশনের পরিপ্রেক্ষিতে এ আদেশ দেন। তথ্যমন্ত্রীর ড. হাছান মাহমুদের ব্যক্তিগত সহকারী বাদী হয়ে পিটিশনটি দায়ের করেন। 

চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মেজবাহ উদ্দিন জানান, মঙ্গলবার তথ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী বাদী হয়ে ডিজিটাল আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি আদালত কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। এরপর তিনি একই দিন ভিডিও সরাতে একটি পিটিশন দায়ের করেন।’

মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ড. হাছান মাহমুদ এমপিকে রাজনৈতিক, সামাজিক, রাষ্ট্রীয়ভাবে, হেয়প্রতিপন্ন, মানহানী ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করার কু-মানসে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন পূর্বক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ‘নাগরিক টিভি’ নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেজ থেকে ১৩ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ক্লিপ আপলোড করা হয়।

চট্টগ্রাম সাইবার ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় কানাডা প্রবাসী নাজমুস সাকিব, নাগরিক টিভি নামে একটি ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেল, এইচ এম কামাল, আজাদ শাহাদাত, সানি প্রধান, সাইফুল ইসলাম তালুকদার, খন্দকার ইসলাম এবং মোহাম্মদ হাজি হারুন রশিদকে বিবাদী করা হয়।

তথ্যসুত্র: ইত্তেফাক